মুক্তিযুদ্ধের অগ্নিভাষ্য ‘বীরাঙ্গনা’ আবার লন্ডনে অনুষ্ঠিত হবে ৮ এপ্রিল রোববার

96

 

 

বিশেষ প্রতিবেদন: ৩ এপ্রিল লন্ডন:

মুক্তিযুদ্ধের অগ্নিভাষ্য ‘বীরাঙ্গনা’ আবার উপস্থাপন করছে আবৃত্তি সংগঠন ছান্দসিক ৮ এপ্রিল রোববার।

পূর্ব লন্ডনের কবি নজরুল সেন্টারে ৮ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টায় আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে মূলধারার দর্শকসহ বাঙালি দর্শকরা থাকবেন বলে জানিয়েছেন সংগঠনের প্রধান সংগঠক মুনিরা পারভীন।

উল্লেখ্য, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত বীর নারীদের আত্মজৈবনিক কথন নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের অগ্নিভাষ্য গত ২৫ মার্চ পূর্ব লন্ডনের শাহ কমিউনিটি সেন্টারে ছান্দসিক উপস্থাপন করে। অনুষ্ঠানটি সুধী মহলে বিপুলভাবে প্রশংসিত হয় এবং এ উপস্থাপনাটি পুনরায় আয়োজনের জন্য অসংখ্য অনুরোধ আসতে থাকে। এই সব অনুরোধকে সম্মান জানিয়ে দ্বিতীয়বার ৮ এপ্রিল  কবি নজরুল সেন্টারে ‘বীরাঙ্গনা’পাঠ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এ আয়োজনটি মূলধারার শ্রোতা দর্শকদের সম্পৃক্ত  করতে প্রধানত উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।এদিকে, উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, অনুষ্ঠানটির খরচ সংকুলানের জন্য ৫পাউন্ড টিকেট রাখা হয়েছে এদিন। সংগঠনের পক্ষে মুনিরা পারভীন জানিয়েছেন, যারা গত ২৫ মার্চের অনুষ্ঠানটিতে দর্শক-শ্রোতা হিসেবে অংশ নিতে পারেননি,তাদের প্রতি অনুরোধ থাকবে মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের মা-বোনদের ওপর কী পরিমাণ নির্যাতন হয়েছিল,সে ইতিহাস ও মর্মান্তিক কাহিনিকে জানতে আসুন—যে ইতিহাস হারিয়ে যাচ্ছে,যা আমরা ভুলতে বসেছি।

‘মুক্তিযুদ্ধের অগ্নিভাষ্য‘র ‘বীরাঙ্গন’ পাঠে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত বীর নারীদের নিয়ে ড. নীলিমা ইব্রাহিমের লেখা ‘আমি বীরাঙ্গনা বলছি’ বই ও বিভিন্ন লেখকের লেখা থেকে পাঠ।

গত ২৫  মার্চ ‘জাতীয় গণহত্যা দিবস’টিতে এ ব্যতিক্রমী আয়োজন উপস্থিত সুধীজনকে অশ্রুসিক্ত করা ছাড়াও প্রতিবাদী প্রেরণা যোগায়। এমনকি এ পাঠ ইতিহাসের পুর্ণপাঠ ও শোষণ ‘মুক্তি‘র আকাঙ্খা জাগ্রত করার একটি মুখ্য বার্তা বলে অনেকে মন্তব্য করেন।অনুষ্ঠানটির থিম ‘মুক্তিযুদ্ধের অগ্নিভাষ্য’টিও আলাদা ব্যঞ্জনা সৃষ্টি ও শক্তিধর প্রতিবাদী বক্তব্য বলেও ছান্দসিক প্রশংসা কুড়ায়। ছান্দসিক আয়োজিত  এ উপস্থাপনাটির পরিকল্পনা,গ্রন্থনা ও নির্দেশনায়  রয়েছেন খ্যাতিমান আবৃত্তিকার মুনিরা পারভীন।