যে ঘটনায় বদলে যায় অভিযানের কৌশল

91

উজ্জ্বল মেহেদী

সিলেট,২৮ মার্চ:আতিয়া মহলে থাকা জঙ্গিদের আত্মসমর্পণ করাতে গত শুক্রবার দিনভর দফায় দফায় ডাকাডাকি করে পুলিশ।

‘ফোর্স পাঠান, সোয়াত পাঠান, আমাদের সময় কম।’—এই কথোপকথনেই বদলে যায় আতিয়া মহলে জঙ্গিবিরোধী অভিযানের কৌশল। অভিযান-সংশ্লিষ্ট একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা প্রথম আলোকে এমনটাই জানিয়েছেন।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের পর পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সিলেটের বিভিন্ন স্থানে অনুসন্ধান ও তল্লাশি চালাচ্ছিল পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি এলাকার আতিয়া মহলের সন্ধান পাওয়া যায়। পাঁচতলা বাড়িটি গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ঘিরে ফেলে পুলিশ। ভোররাতে বাড়ির ভেতর থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে হাতবোমা ছোড়া হয়।

বাড়ির মালিকের কাছ থেকে ভাড়াটেদের তথ্য নিয়ে পুলিশ নিশ্চিত হয়, নিচতলার একটি ফ্ল্যাটে জঙ্গিরা অবস্থান করছে। ভেতরে একজন নারী থাকার বিষয়ে নিশ্চিত ছিল পুলিশ। কিন্তু মোট কতজন আছে, সে ব্যাপারে নিশ্চিত ছিল না।

বাড়ির মালিকের দেওয়া তথ্যে পুলিশ জানতে পারে, গত জানুয়ারি মাসে একটি পরিবার নিচতলায় ওঠে। ভাড়াটে ফরমে মর্জিনা বেগম নাম লেখা হয়। এ তথ্যের সুবাদে জঙ্গিদের আত্মসমর্পণ করাতে গত শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার থেকে পুলিশ হাতমাইকে ডাকাডাকি শুরু করে।

সিলেট মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার হোসেন বাড়িটির উল্টো দিকে পুকুরপাড়ে দাঁড়িয়ে হাতমাইকে বলতে থাকেন, ‘মর্জিনা, শুনতে পাচ্ছেন, কথা বলেন মর্জিনা!’

পরে পুলিশের অন্য সদস্যরাও মর্জিনার নাম নিয়ে এমন ডাকাডাকি করেন। এভাবে ডাকাডাকির একপর্যায়ে বাড়ির নিচতলার ফ্ল্যাটের জানালা থেকে প্রথম নারী কণ্ঠ ভেসে আসে, ‘আমরা আল্লার পথে আছি।’

দ্বিতীয় দফায় ফ্ল্যাটের ভেতর থেকে আরও কিছু কথাবার্তা শোনা যায়। শেষে ফ্ল্যাট থেকে বলা হয়, ‘ফোর্স পাঠান, সোয়াত পাঠান, আমাদের সময় কম।’

এরপর দিনভর দফায় দফায় ডাকাডাকি করলেও জঙ্গিরা আর সাড়া দেয়নি।

অভিযান-সংশ্লিষ্ট একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, শুক্রবার জঙ্গিদের ওই কথোপকথন শোনার পরই অভিযানের কৌশল বদলে যায়। জঙ্গিদের কাছে শক্তিশালী অস্ত্র ও বিস্ফোরক আছে বলে ধারণা করে পুলিশ।

জালালাবাদ থানার ওসি আখতার হোসেন বলেন, ‘সোয়াত পাঠান, সময় কম’—এই কথা শোনার পর মনে হয়েছে, জঙ্গিরা শক্ত অবস্থানে আছে। বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়।

তখনকার পরিস্থিতি সম্পর্কে সিলেট মহানগর পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, যেহেতু জঙ্গিরা সোয়াত ডেকেছে, তাই সেটি কোনো ফাঁদ কি না, তা পর্যবেক্ষণ করা হয়। শুক্রবার বিকেলে ঢাকা থেকে সোয়াত আসে। সন্ধ্যার পর আসে সেনাবাহিনী। শনিবার সকালে সেনাবাহিনী অভিযান শুরু করে।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলনে সেনাবাহিনী জানায়, বাড়ির ভেতরে থাকা চার জঙ্গি নিহত হয়েছে, যাদের মধ্যে তিনজন পুরুষ ও একজন নারী। আতিয়া মহলে আর কোনো জঙ্গি জীবিত নেই। সবাই অভিযানে নিহত হয়েছে।

সেনাবাহিনী আরও জানায়, আতিয়া মহল চারটি মৃতদেহ বের করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

 সিলেটে নিহত চার জঙ্গির একজন মুসা

বিলেতবাংলা ২৮ মার্চ: সিলেটের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি এলাকার আতিয়া মহলে জঙ্গিবিরোধী অভিযানে নিহত চার জঙ্গির মধ্যে একজন মাঈনুল ইসলাম ওরফে মুসা বলে জানিয়েছেন কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের কর্মকর্তারা। তাঁরা জানান, মুসা যে ছবি দিয়ে বাড়ি ভাড়া নিয়েছিলেন, সেই ছবির সঙ্গে পুলিশের কাছে থাকা ছবির মিল দেখে তাঁরা পরিচয় নিশ্চিত হয়েছেন।

পুলিশের মতে, মুসা নব্য জেএমবির শীর্ষ নেতা। নব্য জেএমবির কয়েকজন শীর্ষ নেতা নিহত হওয়ার পর মুসা নব্য জেএমবিকে গোছানোর চেষ্টা করছিলেন।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় সিলেটে সেনাবাহিনী ব্রিফিং করে জানায়, আতিয়া মহলের ভেতরে থাকা চার জঙ্গি নিহত হয়েছে, যাদের মধ্যে তিনজন পুরুষ ও একজন নারী।

এদের মধ্যে দুজন আগের দিন রোববার কমান্ডোদের গুলিতে নিহত হয় বলে ওই দিন সেনাবাহিনী জানিয়েছিল। বাকি এক নারী ও পুরুষ এর আগে না পরে নিহত হয়েছে, সে সম্পর্কে গতকাল কিছু বলা হয়নি।

গত ২৪ ডিসেম্বর রাজধানীর আশকোনায় জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের পর আলোচনায় আসেন মাঈনুল ইসলাম। তাঁর সাংগঠনিক ছদ্মনাম মুসা। ওই আস্তানা থেকে মুসার স্ত্রী ও জাহিদের স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে আত্মসমর্পণ করলেও আরেক নারী বোমা ফাটিয়ে আত্মঘাতী হন। ওই অভিযানের পর মুসা চট্টগ্রামের দিকে আস্তানা গাড়েন।

রাজধানীর আশকোনার বাসাটি ইমতিয়াজ পরিচয়ে ভাড়া নিয়েছিলেন মুসা।

পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ‘আজিমপুরের জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের পর তানভীর কাদরীর ছেলে ও মেজর (অব.) জাহিদুল ইসলামের মেয়ে দুজনেই “মুসা আঙ্কেল” নামের একজনের কথা বলেছে। জাহিদুলের মেয়ে আমাদের জানায়, তার মা জেবুন্নাহার শিলা ও ছোট বোন আজিমপুরের বাড়িতেই ছিল। একদিন জেবুন্নাহার শিলা তাদের জানান, তিনি মুসা আঙ্কেলের বাসায় যাচ্ছেন। মুসা আঙ্কেলের স্ত্রীর “বাবু” হবে।’

মুসার বাড়ি রাজশাহীর বাগমারায়। তিনি উপজেলার গনিপুর ইউনিয়নের বুজরুককোলা গ্রামের আবুল কালাম মোল্লাহর ছেলে। মুসার বাবা আবুল কালাম মোল্লাহ মসজিদের মোয়াজ্জিন ছিলেন। তিনি মারা গেছেন। মুসা গ্রামে খুব কম আসতেন। লোকজনের সঙ্গে তেমন যোগাযোগও ছিল না। এলাকায় মেধাবী ছাত্র হিসেবে মুসার পরিচিতি ছিল। ঢাকা কলেজে ইংরেজি সাহিত্য বিভাগে সম্মান ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি শেষ করে তিনি উত্তরার লাইফ স্কুলে যোগ দেন। এরপর থেকেই তাঁদের পারিবারিক অবস্থার উন্নতি হয়।

পুলিশ জানায়, লাইফ স্কুলের অধ্যক্ষ মিজানুর রহমানের তাদের বলেছেন, মুসা এ (২০১৬) বছরের ফেব্রুয়ারি বা মার্চ মাস পর্যন্ত তাঁদের স্কুলে ইংরেজি পড়াতেন। পরে চাকরি ছেড়ে দেন।

 

মুসার মা সুফিয়া বেগম গত ডিসেম্বরে প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ১০ মাস ধরে তাঁর ছেলে ও ছেলের স্ত্রী-সন্তানের কোনো সন্ধান তাঁরা পাননি।