হোয়াইট হাউসে ঢুকতে দেওয়া হলো না সাংবাদিকদের

54

বিলেতবাংলা ২৪ ফেব্রুয়ারি:  হোয়াইট হাউসে শুক্রবার অনুষ্ঠিত এক ব্রিফিংয়ে সিএনএনসহ বেশ কয়েকটি শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধি ঢুকতে দেওয়া হয়নি। সংবাদমাধ্যমগুলো এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুক্রবার হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি শন স্পাইসারের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ব্রিফিংয়ে দ্য নিউইয়র্ক টাইমস, দ্য লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস, পলিটিকো, বাজফিড, বিবিসি ও গার্ডিয়ানের মতো শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। ব্রিফিংয়ে অংশগ্রহণের অনুমতি পায় একটি টেলিভিশন চ্যানেল, একটি রেডিও, একটি পত্রিকা ও হাতে গোণা কয়েকটি সংবাদ সংস্থার প্রতিনিধি।

ব্রিফিংয়ে অংশ নিতে যুক্তরাষ্ট্রের পাঁচটি প্রধান টেলিভিশন চ্যানেলের মধ্যে এনবিসি, এবিসি, সিবিএস ও ফক্স নিউজকে হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। বাদ দেওয়া হয় শুধু সিএনএনকে।

সিএনএনসহ বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিদের ঢুকতে না দেওয়ার কারণ হিসেবে হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ব্রিফিংয়ে অংশগ্রহণকারীদের তালিকায় এসব গণমাধ্যম প্রতিনিধিদের নাম ছিল না।

এই ঘটনার পর তাৎক্ষণিকভাবে ব্রিফিং বয়কট করার সিদ্ধান্ত নেয় অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস (এপি), টাইম ম্যাগাজিন ও ইউএসএ টুডের সাংবাদিকরা।

সংবাদমাধ্যমগুলো এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। এক বিবৃতিতে সিএনএনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘ট্রাম্পের হোয়াইট হাউসের এ আচরণ অগ্রহণযোগ্য। কার্যত, আপনি যখন বস্তুনিষ্ঠ সবাদ পরিবেশন করবেন, যা তাদের পছন্দ হবে না, তখন তারা এভাবেই প্রতিক্রিয়া দেখাবে। তবে আমরা সংবাদ পরিবেশন অব্যাহত রাখব।’

এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন নিউইয়র্ক টাইমসের নির্বাহী সম্পাদক ডিন বাকেটও। তিনি এক বিবৃতিতে বলেন, ‘আমাদের দীর্ঘ ইতিহাসে বিভিন্ন দলের ও প্রশাসনের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হোয়াইট হাউসে এ ধরনের ঘটনা কখনো ঘটেনি। নিউইয়র্ক টাইমসসহ অন্য সংবাদমাধ্যমকে হোয়াইট হাউসে ঢুকতে না দেওয়ার ঘটনায় আমরা তীব্র নিন্দা জানাই। সরকারের স্বচ্ছ্বতার জন্য গণমাধ্যমের মুক্ত প্রবেশাধিকার নিশ্চিতভাবেই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় স্বার্থ।’

এদিকে এ ঘটনায় কয়েক ঘণ্টা আগে ওয়াশিংটনের বাইরে কনজারভেটিভ পলিটিক্যাল অ্যাকশন কনফারেন্সে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গণমাধ্যমকে নিয়ে উপহাস করেন ও নিন্দা জানান। তিনি বলেন, গণমাধ্যমের বেশিরভাগ প্রতিনিধিই ‘জনগণের শত্রু।’

এর কয়েক ঘণ্টা পরে ওয়াশিংটনের কাছে কনজারভেটিভ পলিটিক্যাল অ্যাকশন কনফারেন্সে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সংবাদমাধ্যমের ওপর আবারও ঝাল ঝাড়েন। তিনি বলেন, বেশির ভাগ সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিরা জনগণের শত্রু।