মিরাজের পাঁচে প্রথম দিনটি বাংলাদেশের

63

বিলেতবাংলা ডেস্ক,২০ অক্টোবর: চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে স্পিনারদের বল যেভাবে সাপের মতো বাঁক নিচ্ছে তাতে দিন শেষে ৭ উইকেটে ২৫৮ রান নিয়ে খুব একটা অসন্তুষ্ট হবার কথা নয় অ্যালিস্টার কুকের। আর প্রথম দিনই ইংল্যান্ডের লম্বা ব্যাটিং লাইন আপকে গুড়িয়ে দিতে পেরেছে বাংলাদেশের বোলাররা। তাকে অখুশি হবার কথা নয় মুশফিকেরও।

মেহেদী হাসান মিরাজের পাঁচ আর সাকিব আল হাসানের দুই উইকেটে প্রথম দিন শেষে ৭ উইকেটে ২৫৮ তুলেছে ইংল্যান্ড। সফরকারীদের হয়ে সবোর্চ্চ ৬৮ রান করেন মঈন আলী। এছাড়া জনি বেয়ারস্টো ৫২ ও জো রুট করেন ৪০ রান।

আজ চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুক। এই ম্যাচ দিয়ে ১৪ মাস পর ফের আবার সাদা পোষাকে খেলছে টাইগাররা। এর আগে ইংলিশদের বিপক্ষে আটটি টেস্ট খেলে সবগুলোতেই হেরেছে বাংলাদেশ।

শুরুটাও হয় দুর্দান্ত। দশম ওভারেই উইকেটে দেখা পায় বাংলাদেশ। ওয়ানডেতে দারুণ খেলা বেন ডাকেটকে ফিরিয়ে দেন আরেক অভিষিক্ত মেহেদী হাসান মিরাজ। এরপর অ্যালিস্টার কুককে ফিরিয়ে দেন সাকিব। স্পিনের আশায় সুইপ করেন কুক। তবে বল কুকের হাত ছুঁয়ে স্টাম্পসে লাগে।

এরপরের ওভারেও দারুণ সব টার্ন পেয়েছেন অভিষিক্ত মিরাজ।  বেন ডাকেটকে তো এমনই এক স্পিনে বোল্ড করেন মিরাজ। বলের লাইনেই ছিলেন ডাকেট। তবে বাঁক খেয়ে স্টাম্পে আঘাত হানে বল।

গ্যারি ব্যালেন্সের আউট অবশ্য মুশফিকের দারুণ চিন্তার ফসল। মিরাজের বল ব্যালেন্সের ব্যাট-প্যাড হলে রিভিউ চান মুশফিক। ফল অবশ্য বাংলাদেশের পক্ষেই যায়।

এরপর জো রুট আর মঈন আলী মিলে ইংল্যান্ডের ইনিংসটা সামলান। চতুর্থ উইকেট জুটিতে তারা ৬২ রান যোগ করেন। মধ্যাহ্ন বিরতিতে যাওয়ার সময় ইংল্যান্ডের স্কোর ছিল ৩ উইকেটে ৮১ রান। লাঞ্চ থেকে ফিরেই আবার ভাঙন ধরে ইংল্যান্ড ইনিংসে।

প্রথম ওভারেই সাকিবের বলে মঈন আলীর বিপক্ষে আঙুল তোলেন আম্পায়ার  কুমার ধর্মসেনা। তবে রিভিউ নিয়ে এ দফায় অবশ্য বেঁচে যান মঈন। তবে পরের ওভারে আর রক্ষা পায়নি ইংল্যান্ড।

মিরাজের বলে আউট হয়ে ফিরে যান ইংলিশ ব্যাটিং অর্ডারের অন্যতম ভরসা জো রুট। ৪৯ বলে ৪০ রান করেন রুট। রুট আউট হবার পর স্টোকসকে নিয়ে ইংলিশ তরী এগোতে থাকেন মঈন। তবে এখানেও বাঁধ সাঝেন সাকিব। দলীয় ১০৬ রানে দারুন এক বলে স্টোকসকে বোল্ড করেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার।

আউট হবার আগে ১৮ রান করেন স্টোকস। এরপর জনি বেয়ারস্টোকে নিয়ে ৮৮ রানের জুটি বেধে ইংল্যান্ডকে সম্মানজনক একটি জায়গায় নিয়ে যান মঈন আলী। এই জুটিতেই নিজের অর্ধশতকও পূর্ণ করেন মঈন।

অবশেষে দলীয় ১৯৪ রানে রণে ভঙ্গ দেন মঈন আলী। মেহেদী হাসান মিরাজের ঘূর্ণিতে পরাস্ত হন এই ইংলিশ ব্যাটসম্যান। বল মঈনের ব্যাট ছুয়ে মুশফিকের গ্লাভসে জমা হয়। ১৭০ বলে ৬৮ রান করেন মঈন। মঈন ফেরার পর জনি বেয়ারস্টো ও ক্রিস উকস স্কোরবোর্ডে ৪৩ রান যোগ করেন।

তবে দলীয় ২৩৭ রানে বেয়ারস্টোকে বোল্ড করে অভিষেক টেস্টেই পাঁচ উইকেট নেবার গৌরব অর্জন করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। দিনের বাকি সময়টা আদিল রশীদকে নিয়ে নির্বিঘ্নে পার করেন ক্রিস উকস।

বাংলাদেশ দল : মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ,  তাইজুল ইসলাম, শফিউল, মেহেদী হাসান মিরাজ, কামরুল ইসলাম রাব্বি ও সাব্বির রহমান।

ইংল্যান্ড দল: বেন ডাকেট, অ্যালিস্টার কুক. জো রুট, গ্যারি ব্যালেন্স, মঈন আলী, বেন স্টোকস, জনি বেয়ারস্টো, ক্রিস উকস, আদিল রশীদ, গ্যারেথ বাটি, স্টুয়ার্ট ব্রড।