জাপানে ফের ভূমিকম্পের আশঙ্কায় বাড়ি ছাড়ার নির্দেশ

107

 

বিলেতবাংলা ডেস্ক,১৮ এপ্রিল: ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট ব্যাপক ধ্বংস্তূপের নিচে জীবিতদের খোঁজে নেমেছেন প্রায় ৩০ হাজার উদ্ধারকর্মী। ছবি: রয়টার্স

ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট ব্যাপক ধ্বংস্তূপের নিচে জীবিতদের খোঁজে নেমেছেন প্রায় ৩০ হাজার উদ্ধারকর্মী। ছবি: রয়টার্স

ফের ভূমিকম্পের আশঙ্কায় জাপানে দুই লাখ ৫০ হাজার মানুষকে বাড়ি ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে একটি ত্রাণ সংস্থা।

আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে আরো মেডিকেল টিম যাচ্ছে বলে জাপান রেডক্রস সোসাইটির উপদেষ্টা নাওকি কোকাওয়া বিবিসিকে জানিয়েছেন।

গেল বৃহস্পতি ও শনিবার দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় দ্বীপ কিউশুতে দুটি শক্তিশালী ভূমিকম্পে অন্ততপক্ষে ৪২ জন নিহত ও এক হাজারেরও বেশি মানুষ আহত হন। ভূমিকম্পে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। সেতুসহ সড়ক, ভবন, ঘরবাড়ি ধসে পড়ে।

ধ্বংস্তূপের নিচে জীবিতদের খোঁজে নেমেছেন প্রায় ৩০ হাজার উদ্ধারকর্মী।

দুটি ভূমিকম্পের ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার আগেই আগামী কয়েকদিনের মধ্যে আরো ভূমিকম্প হতে পারে বলে সতর্কতা জারি করেছে দেশটির আবহওয়া সংস্থা।

সোমবার জাপানের পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে বলেছেন, “এখনও মানুষজন নিখোঁজ রয়েছেন। লোকজনকে উদ্ধার ও রক্ষার জন্য আমরা আরো উদ্যোগ নিতে চাই, মানুষের জীবনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে চাই।”

কিউশু দ্বীপে ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাকে ‘দুর্গত এলাকা’ বলে ঘোষণা করতে চান বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার রাতে দ্বীপটির কুমামোতো শহর ছয় দশমিক চার মাত্রার ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে, মারা যায় অন্ততপক্ষে নয়জন।

একদিন না যেতেই শনিবার প্রথম প্রহরের রাত ১টা ২৫ মিনিটে সাত দশমিক তিন মাত্রার আরেকটি ভূমিকম্পে ফের কেঁপে ওঠে শহরটি।

ভূমিকম্প দুটির উৎস মাটির অল্প গভীরে হওয়ায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। সড়কপথ, সেতু ও টানেল ধসে পড়ে, বড় ধরনের ভূমিধসের কারণে পাহাড়ি এলাকার গ্রামগুলো পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।