ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবিতে ডাউনিং স্ট্রিট অভিমুখে বিক্ষোভ মিছিল

68
?????????????????????????????????????????????????????????

 

বিলেতবাংলা ডেস্ক, ৯ এপ্রিল: পানামা পেপার্সে কর ফাঁকির তথ্য ফাঁসের পর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের পদত্যাগের দাবিতে শত শত বিক্ষোভকারী ডাউনিং স্ট্রিট অভিমুখে মার্চ করেছে।

চাপের মুখে অফশোর একাউন্টের মাধ্যমে ৩০ হাজার ব্রিটিশ পাউন্ড লাভের কথা স্বীকার করার পর ক্যামরনের বিরুদ্ধে ‘ভণ্ডামির’ জোরালো অভিযোগ উঠেছে।

বিরল এক সাক্ষাৎকারে ক্যামেরন স্বীকার করেন যে তিনি তার প্রয়াত বাবা ইয়ানের প্রতিষ্ঠিত অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে লাভবান হয়েছেন।

এরপর শনিবার হাজার হাজার বিক্ষোভকারী লন্ডনের হোয়াইটহলে সমবেত হয়ে দাবি তোলেন ক্যামেরন ‘এখনই পদত্যাগ করতে হবে।’

বিক্ষোভকারীরা পানামা হ্যাট পরে এবং ক্যামেরনের পদত্যাগের দাবি সম্বলিত প্ল্যাকার্ড নিয়ে ডাউনিং স্ট্রিটে সমবেত হন।

বিশাল একটি শুকরের মুখে ক্যামেরনের মুখোশ লাগিয়ে জনতা স্লোগান তোলেন ‘ডেভিড ক্যামেরন মাস্ট রিজাইন, ট্যাক্স ইভেশন ইজ এ ক্রাইম’।

স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় বিক্ষোভ শুরু হয়েছে এবং শেষ পর্যন্ত এতে অন্তত ২,০০০ লোক সমবেত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এদিকে অফসোর বিনিয়োগ থেকে সুবিধা পাওয়ার কথা স্বীকার করার পর ক্যামেরনের পদত্যাগ দাবি করেছেন লেবার দলের এমপি জন মান। তাকে সমর্থন করেছেন লিবারেল ডেমোক্রেট দলের নেতা টিম ফ্যারোন। একই সঙ্গে সরকারের অন্য মন্ত্রীদের আয়কর রিটার্ন প্রকাশ করার আহ্বান জানিয়েছেন লেবার দলের এমপিরা।

এমপি জন মান প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগ করার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, তিনি পার্লামেন্টের স্থায়ী কমিশনার ক্যাথরিন হাডসনকে বলবেন ক্যামেরনের বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখতে যে, তিনি তার শেয়ার থেকে যে সুবিধা তিনি পেয়েছেন তা তিনি হাউস অব কমন্সের রেজিস্টারে প্রকাশ করেছেন কিনা।

এদিকে ডেভিড ক্যামেরন দেশবাসীকে ভুলপথে পরিচালিত করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিরোধী লেবার দল নেতা জেরেমি করবিন। তিনি আরো বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী মানুষের আস্থা হারিয়েছেন।

এ বিষয়ে সোমবার পার্লামেন্টে ক্যামেরন একটি বিবৃতি দেবেন বলে আশা করা হচ্ছ

পানামা পেপার্স কর ফাঁকির কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে বিভিন্ন দেশের বহু রাজনীতিক, ব্যবসায়ী, সেলিব্রেটিসহ বহু লোক বেকায়দায় পড়েছেন।

পানাম পেপার্স কেলেঙ্কারিতে গত সপ্তাহে পদত্যাগ করেন আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সিগমুন্ডুর গুনলাউগসন।

এদিকে কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগে চাপে পড়েছেন আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট মৌরিসিও মাক্রি, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এবং সৌদি রাজা সালমান।

সূত্র: ডেইলি মেইল