তনুর খুনীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে ধর্মঘট চলছে

85

বিলেতবাংলা ডেস্ক, ৩ এপ্রিল:  কুমিল্লার কলেজছাত্রী সোহাগী জাহান তনুর খুনীদের গ্রেপ্তার ও বিচার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মঘট চলছে।

দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ডাকা এই কর্মসূচি সফল করতে রোববার সকাল ৭টা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীবৃন্দ ব্যানারে কলাভবনের মূল ফটকে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা।

তাদের সঙ্গে যোগ দেন বাম ছাত্র সংগঠনগুলোর মোর্চা প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ছাত্র ঐক্যের নেতাকর্মীরা।

অনেকটা স্বতঃস্ফূর্ত এই ধর্মঘটে প্রায় সব ক্লাস বন্ধ থাকলেও আওতামুক্ত থাকায় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বাণিজ্য অনুষদে একটি ক্লাস শুরু হলেও ছাত্র-শিক্ষকদের জানানোর পর তা বাতিল হয়ে যায়।

এই কর্মসূচির সমন্বয়ক ফারহান শাহরিয়ার পুলক  গণমাধ্যমকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে এই ধর্মঘটে সমর্থন জানিয়েছে।

“তবে ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ম্যানেজমেন্ট বিভাগে ক্লাস হচ্ছে শুনে আমরা সেখানে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বললে তারা ক্লাস বর্জন করেছে।”

ধর্মঘট শেষে বিকাল ৪টায় টিএসসির মোড়ে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান এই শিক্ষার্থী।

সরেজমিনে ঘুরে বাণিজ্য অনুষদের ম্যানেজমেন্ট বিভাগ ও টুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগে ক্লাস চলতে দেখা যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক আমজাদ আলী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, শিক্ষার্থীরা যে দাবিতে ধর্মঘট ডেকেছে, তাতে সবাই একাত্মতা প্রকাশ করেছে।

সোহাগী জাহান তনু হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদের ঝড় এখন সারা বাংলাদেশে সোহাগী জাহান তনু হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদের ঝড় এখন সারা বাংলাদেশে “শিক্ষার্থীরা যেহেতু ক্লাসে আসেনি তাই বেশিভাগ বিভাগের ক্লাস হচ্ছে না। তবে ব্যবসা অনুষদে শিক্ষার্থীদের কয়েকটি ক্লাস হয়েছে বলে শুনেছি।

পরীক্ষা ধর্মঘটের আওতামুক্ত থাকায় সব পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

গত রোববার শাহবাগে অবরোধের পর সারাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এই ধর্মঘট ডাকে তনুর খুনিদের গ্রেপ্তার-বিচার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থী ব্যানারে আন্দোলনরত একদল শিক্ষার্থী।

তবে এদিন থেকে শুরু হওয়া এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কর্মসূচির আওতার বাইরে রয়েছে।

এর আগে তনুর খুনিদের গ্রেপ্তার ও সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে ৩০ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে একঘণ্টা ধর্মঘটের কর্মসূচি দেয় গণজাগরণ মঞ্চ।

এর মধ্যে তনুর খুনিরা গ্রেপ্তার না হলে ৪ এপ্রিল দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়ে রেখেছে ছাত্র ইউনিয়ন।