পাকিস্তানকে বিদায় করে সেমির পথে অস্ট্রেলিয়া

89

২৫ মার্চ: স্টিভেন স্মিথ ও শেন ওয়াটসনের শেষ চার ওভারের ঝড় গড়ে দিল পার্থক্য। শেষ চারের ক্ষীণ আশাটুকু বাঁচিয়ে রাখতে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল বড় জয়। কিন্তু তাদের বিদায় ঘণ্টা বাজিয়ে নিজেদের সম্ভাবনা উজ্জ্বল করল অস্ট্রেলিয়া।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার টেনের ম্যাচে পাকিস্তানকে ২১ হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। মোহালিতে ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ১৯৩ রান তুলেছিল স্মিথের দল। পাকিস্তান ২০ ওভারে করতে পেরেছে ৮ উইকেট ১৭২।

১৬ ওভার শেষে অস্ট্রেলিয়ার রান ছিল ৪ উইকেটে ১৩৫। পাকিস্তানের রানও ছিল ঠিক ৪ উইকেটে ১৩৫। অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে শেষ ৪ ওভারে তাণ্ডব চালিয়েছেন স্মিথ ও ওয়াটসন। কিন্তু পাকিস্তান খুঁজে পায়নি কোনো স্মিথ বা ওয়াটসনকে। উল্টো বোলিং বৈচিত্রে পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানদের খাবি খাইয়েছেন জেমস ফকনার।

শেষ ২ ওভারে চারটিসহ ২৭ রানে ৫ উইকেট নিয়ে ম্যান অব ম্যাচ ফকনার। এবারের বিশ্বকাপে এটিই প্রথম ৫ উইকেট।

ভারত-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ এখন কার্যত হয়ে দাঁড়াল কোয়ার্টার-ফাইনাল। ৩ ম্যাচের দুটি করে জিতেছে দুই দল। রোববার মোহালিতে মহারণে জয়ী দল খেলবে শেষ চারে। প্রথম ৩ ম্যাচ জিতেই এই গ্রুপ থেকে আগেই সেমি-ফাইনাল নিশ্চিত করেছে নিউ জিল্যান্ড।

আর ৪ ম্যাচের তিনটিতে হেরে বিদায় নিল ২০০৯ সালের চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তান। এই ম্যাচটিই হয়ে থাকতে পারে পাকিস্তান অধিনায়ক শহিদ আফ্রিদির শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ।

প্রথম ২ ম্যাচ বাইরে থাকার পর এদিন একাদশে জায়গা পেয়েছেন টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ব্যাটসমান অ্যারন ফিঞ্চ। এক নম্বরের মত কিছু অবশ্য করতে পারেননি। ১৬ বলে করেছেন ১৫ রান।

ফর্মে থাকা ওপেনার উসমান খাওয়াজা ফিরেছেন ১৬ বলে ২১ রান করে। তিনে নেমে ডেভিড ওয়ার্নার করেছেন ৯। ৫৭ রানে অস্ট্রেলিয়া হারায় ৩ উইকেট।

অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস গতি পায় চতুর্থ উইকেটে স্মিথ ও ম্যাক্সওয়েলের জুটিতে। ৩৮ বলে ৬২ রানের জুটি গড়েন দুজন। ইমাদ ওয়াসিমকে ছক্কা মারতে গিয়ে আউট হয়েছেন ম্যাক্সওয়েল (১৮ বলে ৩০)।

ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দেওয়া সময়টি এসেছে এরপরই। অবিচ্ছিন্ন পঞ্চম উইকেটে ৩৮ বলে ৭৪ রানের জুটি গড়েছেন স্মিথ ও ওয়াটসন। বুদ্ধিদীপ্ত ব্যাটিংয়ে পাকিস্তানের বোলিং ও ফিল্ড প্লেসিং নিয়ে ছেলেখেলা করেছেন স্মিথ। ওয়াটসনের ব্যাটিংয়ে ছিল বরাবরেই মতো পাওয়ার শটের প্রদর্শনী।

৭ চারে ৪৩ বলে ৬২ রানে অপরাজিত স্মিথ। চারটি চার ও তিন ছক্কায় ২১ বলে ৪৪ ওয়াটসন। শেষ ৪ ওভারে অস্ট্রেলিয়া তুলেছে ৫৮।

পাকিস্তান পেছনে পরে থেকেছে রান তাড়ার শুরু থেকেই। ঝড় তোলার চেষ্টা করেও টিকতে পারেননি শারজিল খান (১৯ বলে ৩০)। খালিদ লতিফের ৪১ বলে ৪৬ রান পরিস্থিতির দাবি মেটাতে পারেননি।

মাঝে উমর আকমল চেষ্টা করেছেন দ্রুত রান তোলার। তাকে ফিরিয়েছেন বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ-সেরা হওয়া অ্যাডাম জ্যামপা (২০ বলে ৩২)। তরুণ লেগ স্পিনার পরে ফিরিয়েছেন আফ্রিদিকেও। নিজের সম্ভাব্য শেষ ইনিংসেও আফ্রিদি মেটাতে পারেননি দলের চাওয়া। দুই ছক্কায় ১৪ রান করেই স্টাম্পড।

শেষ দিকে অভিজ্ঞ শোয়েব মালিকের (২০ বলে ৪০) ইনিংসটি কমিয়েছে ব্যবধান। দুই ওভার মিলিয়ে ৬ বলের মধ্যে ৪ উইকেট তুলে নিয়ে ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করেছেন ফকনার। টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়ারই প্রথম ৫ উইকেট এটি।

দারুণ পারফরম্যান্সে বার্তাটাও দিয়ে রাখল অস্ট্রেলিয়া। স্বাগতিকদের চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত স্মিথের দল।